• শনি. জানু ২৮, ২০২৩

ভিনিসিয়ুস–জেসুসদের ‘চূর্ণবিচূর্ণ’ করার হুমকি সুইস তারকার

নভে ২৮, ২০২২

ভিনিসিয়ুস–জেসুসদের ‘চূর্ণবিচূর্ণ’ করার হুমকি সুইস তারকার

ব্রাজিলের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু হয়েছে জয় দিয়ে, সুইজারল্যান্ডেরও তাই।

দুই দলের আজকের মুখোমুখি লড়াই শেষ ষোলোর টিকিট পাওয়ার।

জাতীয় দলের জার্সিতে একে–অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও দুই দলের

অনেকেই আবার ক্লাব ফুটবলে সতীর্থ। ব্রাজিলের দুই ফুটবলার

গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও মার্তিনেল্লি যেমন সুইজারল্যান্ডের গ্রানিত

জাকার সঙ্গে খেলেন আর্সেনালে। মৌসুমজুড়ে একসঙ্গে থাকা

সতীর্থরা কি এক ম্যাচের জন্য ‘বন্ধু থেকে শত্রু’তে পরিণত হতে পারেন?

জাকার ভাষ্য, ‘অবশ্যই পারে।’ ৩০ বছর বয়সী এই সুইস মিডফিল্ডার

বিশ্বকাপ মাঠে চেনা প্রতিপক্ষ পাওয়াকে সুবিধা হিসেবেই দেখছেন,

‘সতীর্থকে প্রতিপক্ষ দলে পেলে তো ভালোই। চেনাজানা আছে।

তবে আমরা সবাই পেশাদার ফুটবলার। আর প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা ৯০ মিনিটের।’

২০১৮ বিশ্বকাপে ব্রাজিল-সুইজারল্যান্ড একই গ্রুপে ছিল।

সেই ম্যাচে ফেবারিট ব্রাজিলকে ১-১ সমতায় আটকে দিয়েছিল

সুইজারল্যান্ড। জাকা তখনো আর্সেনালে খেলতেন। তবে

ক্লাব সতীর্থদের কেউ প্রতিপক্ষ ব্রাজিল দলে ছিলেন না।

এবার আছেন দুজন। কাতার বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ড্র হওয়ার

দিন থেকেই জানতেন জাতীয় দলের জার্সিতে মুখোমুখি হচ্ছেন তাঁরা।

বিশেষ করে, বিশ্বকাপের চূড়ান্ত দল ঘোষণায় তো নিশ্চিতই হয়ে যায়।

ক্লাব থেকে ছুটি নিয়ে জাতীয় দলে যোগ দেওয়ার আগে তিনজনের

মধ্যে এ নিয়ে বেশ কথাও হয়েছে। এ নিয়ে জাকা বলেছেন,

‘বিশ্বকাপের আগে ওদের সঙ্গে মজা করছিলাম। একদিন জেসুস

আর মার্তিনেল্লিকে বললাম, ‘তোমরা যদি আমাদের গোলকিপারের

সঙ্গে লড়াই করতে যাও, আমি তোমাদের চূর্ণবিচূর্ণ করে দেব।

ওরা কিছুটা ভয়ও পেয়েছে। জানে, আমি ভাঙচুর চালালে সেটা খুব কঠিন কিছুই হয়।’

আলবেনিয়ান বংশোদ্ভূত জাকা মনে করেন, জাতীয় দলের হয়ে

খেললে দেশের স্বার্থের কথা সবার মাথায় আটকে থাকে,

‘আমরা এক দলে খেলি এটা বিশ্বকাপে কোনো বড় বিষয় নয়।

এটা বিশ্বকাপ। সে তাঁর দেশের জন্য খেলবে, আমি আমার দেশের জন্য খেলব। সবাই জিততে চায়।’

জেসুস ও মার্তিনেল্লি অবশ্য ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচে সার্বিয়ার বিপক্ষে শুরুর একাদশে ছিলেন না। দ্বিতীয়ার্ধে রিচার্লিসন ও রাফিনিয়ার বদলি হিসেবে নেমেছিলেন।

আরও আপডেট নিউজ জানতে ভিজিট করুন